প্লাস্টিকের নকল ডিম চিনবেন কীভাবে; কি কি ক্ষতি

কৃত্রিম ডিম বা নকল ডিম তৈরির বিষয়টি অনেক আগে থেকেই শোনা গেলেও সম্প্রতি এটি বাজারেে আসল ডিমের সাথে মিশিয়ে বিক্রির পরিমান বেড়ে যা্ওয়ায় উদ্বিগ্ন অনেক দেশ। চীনে আরো আগেই এই ডিম তৈরির বিষয়টি আসলেও সম্প্রদি ভারতেও এনিয়ে শুরু হয়েছে হৈচৈ। বাংলাদেশে মাঝে মাঝে  এই নকল ডিম তৈরির খবর আসছে বিভিন্ন গণমাধ্যেমে।  এই ডিম স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ন।

সম্প্রতি ইন্ডিয়া টুডের এক খবরে বলা হয়েছে, আসল ডিমের সঙ্গে প্লাস্টিক ডিমের পার্থক্য সহজে বোঝা যায় না। ওমলেট করতে গিয়ে পার্থক্যটা ধরা পড়ে এক ভুক্তভোগীর কাছে। ডিম ফেটিয়ে কড়াইতে দেওয়ার পরই দেখেন শক্ত হয়ে গেছে। পোড়া প্লাস্টিকের গন্ধ বের হচ্ছে। ভালো করে দেখে বোঝা্ যায়, ডিমের খোসাটি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি পুরু।

artificial plastic egg03

জিনিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাজারে নকল ডিমের খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ভারতে সবাইকে সতর্ক করা হয়েছে। এ ধরনের ডিম খেলে স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

নকল ডিম যেভাবে চিনবেন

ডিম ভাঙলে সাদা অংশ ও কুসুম এক হয়ে যায় এবং ছড়িয়ে পড়ে।
সাধারণ ডিমের চেয়ে এই ডিম বেশি চবচকে।
এর খোলসটি বেশি শক্ত। খোলের ভেতর রাবারের মতো লাইন থাকে।
ডিম ঝাঁকালে পানি গড়ানোর মতো শব্দ হয়।
প্লাস্টিকের ডিমে কোনো গন্ধ থাকে না।
আসল ডিম ভাঙলে মুড়মুড়ে শব্দ হয়। কিন্তু প্লাস্টিকের ডিমে তেমন শব্দ হয় না।

artificial plastic egg02

আসল ডিম ভেঙে রেখে দিলে পিঁপড়া বা পোকামাকড় আসে। কিন্তু নকল ডিমে পোকামাকড় আসে না।

কি ক্ষতি হতে পারে

প্লাস্টিকের ডিম তৈরিতে প্রচুর রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়  যা শরীরে ক্যা্ন্সাসহ নানারক রোগ তৈরি করতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, কোনো প্রোটিন বা কোনো পুষ্টিকর উপাদান না থাকায় কৃত্রিম ডিম খেলে রাসায়নিক ক্রিয়ায় শরীরের অঙ্গহানিসহ বিষক্রিয়ায় মৃত্যু হতে পারে। কৃত্রিম ডিমে ব্যবহৃত ক্যালসিয়াম ক্লোরাইড লিভার এবং বেনজয়িক এসিড মস্তিষ্কের স্নায়ুর জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


5 × 3 =