কওমী সনদের স্বীকৃতির প্রশংসায় হাইকোর্ট: রিট খারিজ

কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি দেয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা  একটি রিট খারিজ করে দিয়েছে হাইকোর্ট । প্রাথমিক শুনানি শেষে রিটটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্গীর হোসেন ও বিচারপতি আশফাকু ইসলমের বেঞ্চ। শুনানিতে বরং ক্ওমী মাদ্রাসার স্বীকৃতির প্রশংসা করেছেন হাইকোর্ট।

ক্ওমী মাদ্রাসার দা্ওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্স সমমান দিয়ে সরকারের স্বীকৃতির বৈধতা চ্যালেঞ্জ ও   এবিষয়ে সরকারের প্রজ্ঞাপন বাতিল চেয়ে রিটটি করে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত নামে  একটি সংগঠনের সমন্বয়ক।

সোমবার শুনানি শুরু হলে আদালত রিটকারির আইনজীবীর কাছে জানতে  চান, এই স্বীকৃতির বিরোধীতা তারা কেন করছেন। জবাবে, আইনজীবী জানান, একজন ছাত্রের সাধারণ শিক্ষায় মাস্টার্স করতে ১৬ বছর সময় লাগে আর দা্ওরায়ে হাদিস শেষ করতে লাগে ১০ বছর। এটা বৈষম্যমুলক। তবে, আইনজীবীর এই বক্তব্যকে গ্রহণ করেননি আদালত।

এসময় আদালত বলেন, “ কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি একটি ভাল উদ্যোগ। এখানেও আপনারা প্যাচ লাগাতে চান?”

আদালত আরো বলেন, ক্ওমী শিক্ষার্থীদের যদি এই সনদের মাধ্যমে দেশে-বিদেশে কর্মসংস্থান হয় সেটি দেশের জন্য ভাল। এখানে বিরোধীতার কি দরকার।

এরপর রিটটি খারিজ করে আদেশ দেন আদালত।

গত ১১  এপ্রিল গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাখে হেফাজতে ইসলামের আমির মাওলানা আহামদ শফি ও কওমী শিক্ষকদের বৈঠকের পর সরকার দা্ওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান স্বীকৃতি দেয়। এর পর এই স্বীকৃতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। এনিয়ে বিভিন্ন মহলের সমালোচনার মুখে পড়ে সরকার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


3 × five =