মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ৬ অক্টোবর; ১ সেপ্টেম্বর থেকে বন্ধ কোচিং

সারাদেশে ২০১৭-২০১৮ শিক্ষা বর্ষের মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষা হবে আগামী ৬ অক্টোবর । আর ডেন্টাল বা বিডিএস ভর্তি পরীক্ষা হবে ৩০ নভেম্বর। স্বাস্থ্য পরিবার কল্যান মন্ত্রণালয়ে এবিষয়ে অনুষ্ঠিত সভায় এসিদ্ধান্ত হয় বুধবার।

আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। কেউ এই সিদ্ধান্ত না মানলে  প্রয়োজনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী  বাহিনীর সহায়তা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অনুরোধ জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেণ

 ‘কিছু কিছু চিহ্নিত কোচিং সেন্টার ভর্তি পরীক্ষার সময় ভুয়া প্রশ্নপত্র বানিয়ে শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করে এবং নিরীহ অভিভাবকদের সঙ্গে প্রতারণা করে  বাণিজ্য করে। এই চক্র প্রতিরোধ করতে হলে পরীক্ষার সময় কোচিং সেন্টার বন্ধ করতে হবে।’

মেডিকেল শিক্ষার মান নিয়ে সরকারের কঠোর অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে মন্ত্রী বলেন, মানহীন ও যথাযথ নীতিমালা না মানলে সরকার যেমন বেসরকারি মেডিকেল কলেজ বন্ধ করার অভিযান অব্যাহত রাখছে, তেমনি প্রশ্ন ফাঁস বা ভুয়া প্রশ্ন বিতরণের মতো ঘটনাও যেন না ঘটে সেদিকেও সরকার কঠোর অবস্থানে থাকবে।

এ সময় তিনি গত বছর অনুষ্ঠিত নিখুঁত ভর্তি পরীক্ষার দৃষ্টান্ত তুলে ধরে পরীক্ষা মনিটরিংয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিশিষ্ট ব্যক্তিদের এবারের পরীক্ষা প্রক্রিয়াও নিখুঁতভাবে সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেন।

এমসিকিউ পদ্ধতিতে এক ঘণ্টার পরীক্ষার মাধ্যমে সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে বাংলাদেশের ১২৬টি মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়।

২০১৬ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশে ২৯টি সরকারি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ৩ হাজার ১৬২ জন। অন্যদিকে ৬৪টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে আসন ৫ হাজার ৩২৫টি।

সরকারি নয়টি ডেন্টাল কলেজে ৫৩২টি আসন রয়েছে। ২৪টি বেসরকারি ডেন্টাল কলেজে আসন রয়েছে ১ হাজার।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, বিএসএমএমইউর উপাচার্য কামরুল হাসান খান, চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ইসমাইল খান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, বিএমএর সভাপতি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ইকবাল আর্সলান, বিএমএর মহাসচিব ইহতেশামুল হক, বাংলাদেশ বেসরকারি মেডিকেল কলেজ সমিতির সভাপতি মকবুল হোসেনসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


1 × 3 =