মেসি, রোনারদো নাকি নেইমার; কে সেরা?

গোলের পরিসংখ্যানে নেইমারের চেয়ে অনেক এগিয়ে লিওনেল মেসি ও রোনালদো। আবার ক্লাব বদলের দামে সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙেছেন নেইমার। তাই এখন সারাবিশ্বেই আলোচনা আসলে বর্তমানে ফু্টবলে সেরা তারকা আসলে কে? পরিসংখ্যানই বা কী বলে?

বাই আউট ক্লজের ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো দিয়ে ব্রাজিলের এই ফরোয়ার্ডকে নিয়েছে পিএসজি। ভেঙ্গে গেছে গত বছরের অগাস্টে সাড়ে ১০ কোটি ইউরোয় পল পগবার ইউভেন্তুস থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যাওয়া রেকর্ড।

কিছু সংবাদ মাধ্যমের দাবি, লিওনেল মেসির ছায়া থেকে বেরিয়ে আসার আকাঙ্ক্ষা থেকে ও ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জয়ে নিজেকে আরও এগিয়ে নিতেই কাম্প নউ ছেড়েছেন নেইমার।

বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার গত ৯ বছর পেয়েছেন বার্সেলোনার মেসি ও রিয়াল মাদ্রিদ তারকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। মেসি-রোনালদোর আধিপত্য শেষ করতে পিএসজির হয়ে নেইমার স্বমহিমায় জ্বলতে চাইবেন বলে অনেকের ধারণা।

ফ্রান্সের ক্লাবটির হয়ে মাঠে নামার আগে স্পেনে নেইমারের চার বছরের পারফরম্যান্স মেসি-রোনালদোর সঙ্গে তুলনা করে সংখ্যায় তুলে ধরেছে ক্রীড়া উপাত্ত বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান অপটা।

বার্সেলোনার হয়ে গত চার বছরে ১০৫টি গোল করেছেন নেইমার। এই সময়ে মেসি গোল করেছেন ১৯৪টি; রোনালদো করেছেন ২০৫টি।

বার্সেলোনার হয়ে ট্রেবল শিরোপা জেতা মৌসুমে (২০১৪-১৫) ৩৯টি গোল করেছিলেন নেইমার। নিজের সেরা মৌসুমেও গোলের দিক থেকে মেসি (৫৮) ও রোনালদো (৬১) থেকে ঢের পিছিয়ে ছিলেন তিনি।

নেইমার গত মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় গোল করেন ২০টি। মেসি করেন ৫৪টি। আর ৪২টি গোল করে রিয়ালের লা লিগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ে অবদান রাখেন রোনালদো।

২০১৬-১৭ মৌসুমটাতে সতীর্থদের দিয়ে গোল করানোর দিক থেকে অবশ্য মেসি-রোনালদোকে টপকাতে পেরেছেন নেইমার। সতীর্থদের দিয়ে তার ২১টি গোল করানোর তুলনায় মেসি করিয়েছেন ১৬টি, রোনালদো ১১টি।

কিন্তু গত চার মৌসুমে সতীর্থদের দিয়ে করানো মোট গোলের তুলনায় মেসি (৭৭) ও রোনালদো (৬১) থেকে পিছিয়ে আছেন নেইমার; ৫৯টি।

বল ড্রিবলে রোনালদো (২৮১) থেকে নেইমার (৭৪১) অনেক এগিয়ে থাকলেও বিবর্ণ মেসির (৮৮০) সামনে।

বার্সেলোনার হয়ে প্রথম দুই মৌসুমে গোলের সুযোগ তৈরির ক্ষেত্রে এগিয়ে ছিলেন নেইমার; ২৮৮টি। এই সময়ে মেসি সুযোগ তৈরি করেছেন ২৩৮টি, রোনালদো ১৬৮টি।

 

# বার্সেলোনার হয়ে শেষ দুই মৌসুমে নেইমার (১৩৮) রোনালদোর (১৩১) চেয়ে কিছু বেশি গোলের সুযোগ তৈরি করলেও অনেক পিছিয়ে ছিলেন সতীর্থ মেসি (২২৭) থেকে।

 

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


two × 1 =